বাবরির পর আরেকটি মসজিদ উচ্ছেদের পথে ভারত!

45

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, দৈনিক চট্টগ্রাম >>>
বিতর্কিত বাবরি মসজিদ মামলার রায়ের পর আরও একটি ভারতীয় মসজিদ উচ্ছেদের পাঁয়তারা করছে করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  কৃষ্ণ জন্মভূমি পুনরুদ্ধারের নামে নতুন করে আরেকটি মুসলিম উপাসনালয় তুলে দেওয়া হতে পারে বলে সন্দেহ করছে ভারতীয় সংখ্যালঘু মুসলিমরা।  এ সংক্রান্ত একটি মামলা ইতোমধ্যেই গৃহীত হয়েছে মথুরা আদালতে।
জানা গেছে, শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) এই মামলাটি গ্রহণ করেন মথুরার ডিস্ট্রিক্ট ও সেশন জজ সাধন ঠাকুর।  এর আগে গত সেপ্টেম্বর মাসে মসজিদ সরানোর দাবি জানিয়ে করা মামলাটি খারিজ করে দেন নিম্ন আদালত।  এদিকে, এই মামলায় শাহী দরগা মসজিদ ট্রাস্ট ও সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড-সহ সকল পক্ষকে নভেম্বরের ১৮ তারিখ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।
মথুরার দেওয়ানি আদালতে এবার কৃষ্ণের হয়ে মথুরার কৃষ্ণ মন্দির চত্বর থেকে শাহী দরগা সরানোর দাবিতে কৃষ্ণের ‘বন্ধু’ হিসেবে মামলাটি দায়ের করেছেন উত্তরপ্রদেশে বাসিন্দা রঞ্জন অগ্নিহোত্রি।  মামলায় মন্দির চত্বরের থাকা দরগার ১৩.৩৭ একর জমি খালি করানোর দাবি করা হয়েছে।
মামলাকারীর অভিযোগ, উত্তরপ্রদেশ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড ও শাহী দরগার ম্যানেজমেন্ট ট্রাস্ট স্থানীয় কয়েকজন মুসলিম বাসিন্দার মদতে অবৈধভাবে ওই জমি দখল করে রেখেছে।  শুধু তাই নয়, নিজের অভিযোগে মামলাকারী রঞ্জন অগ্নিহোত্রি বলেছেন, শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থানের উপরই মুসলিম ধর্মস্থলটি রয়েছে।  মন্দিরের দায়িত্বপ্রাপ্ত শ্রীকৃষ্ণ জন্মস্থান সেবা সংস্থান জমি হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে শাহী দরগা ট্রাস্টের সঙ্গে অবৈধভাবে সমঝোতা করেছে।
উল্লেখ্য, মথুরাতে রয়েছে বেশ কয়েকটি প্রাচীন মন্দির।  হিন্দুদের বিশ্বাস, ওই জায়গাটি শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থান।  সেই মন্দির চত্বরেই রয়েছে শাহি ইদগাহ মসজিদ।  হিন্দুরা দাবি করে, প্রাচীন কেশবনাথ মন্দির ভেঙেই মসজিদটি তৈরি করেন সম্রাট আড়ঙ্গজেব।  ১৯৩৫ সালে ওই মন্দির চত্বরের মালিকানা মথুরার রাজার হাতে সঁপে দেয় এলাহাবাদ হাই কোর্ট।  পর্যায়ক্রমে সেই সত্ব বর্তায় বিশ্ব হিন্দু পরিষদের ঘনিষ্ঠ শ্রী কৃষ্ণভূমি ট্রাস্টের হাতে।  ফলে স্বাভাবিকভাবেই দুই ধর্মের মানুষের মধ্যে তৈরি হয় সংঘাত।  অবশেষে ১৯৬৮ সালে এক চুক্তির মাধ্যমে জমির মালিকানা হিন্দুদের হাতে থাকলেও মসজিদটির রক্ষণাবেক্ষণ করার অধিকার পায় মুসলিম পক্ষ।

ডিসি/এসআইকে/এমএসএ