বাইরে ঘোরা যাচ্ছে না? তাহলে ঘরেই প্রেম জমুক!

41

লাইফস্টাইল ডেস্ক, দৈনিক চট্টগ্রাম >>>
মহামারি করোনাকালে কোথাও বেড়াতে যাওয়া নেই, বাইরে খাওয়া বন্ধ, এমনকি শপিংমলে যেতেও কয়েকবার ভাবছি।  চা-কফির আড্ডা তো ভুলতে বসেছি।  ঘরে থেকে থেকে অনেকে রয়েছেন অবসাদে, আর যাদের বাইরে যেতে হচ্ছে তারা আছেন আতঙ্কে।  সব মিলিয়ে চাপ তৈরি হচ্ছে।আমরা জানি ঘরের বাইরে পরস্পরের সবচেয়ে কাছাকাছি আসার একটা উপায় হলো কফিশপ বা রেস্তোরাঁয় খানিক একান্ত সময় কাটানো।  অথবা খোলা আকাশের নিচে সবুজ ঘাষে হাত ধরে পাশাপাশি হাঁটা।
কিন্তু সব কিছু প্রায় খুলে গেলেও এখনো আগের মতো জরুরি কাজ ছাড়া বাইরে যাওয়া হচ্ছে না একসঙ্গে।  তাহলে এই অবস্থায় সম্পর্ক একঘেয়ে মনে হচ্ছে কি?  কি এমন করা যায়, যেন করোনার আতঙ্ক ভুলে আবার ঘরেই ভালো সময় কাটে প্রিয়জনকে নিয়ে?
একটা আইডিয়া কাজে লাগতে পারে, ট্রাই করেই দেখুন। রান্নাঘর থেকে শুরু করুন।  মানে সঙ্গীকে রান্নায় সাহায্য করুন।  ধরুন সঙ্গী তরকারি রান্না করছেন, আপনি সালাদটা কেটে রেডি করুন।  আর এই সময়টা রোবটের মতো শুধু কাজ করতে যাবেন না।  নিজেদের পছন্দ-অপছন্দ, খাদ্যাভ্যাস, ছোটবেলার খাবার নিয়ে পছন্দের ঘটনাগুলো গল্প করুন।
দু’জনে মিলে কাজ করলে দ্রুত কাজ শেষ হয়ে যাবে। আর সঙ্গীর সঙ্গে বেশি সময় কাটানো হবে বাড়তি পাওয়া।  মাঝে মাঝে নতুন কোনো আইটেম রান্না করুন একসঙ্গে।  এতে করে সম্পর্কের বাঁধন আরও মজবুত হয়ে উঠতে পারে।  নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়াও হবে চমৎকার।  দু’জনে মিলে একসঙ্গে রান্না করলে আপনাদের দায়িত্বভাগ করে নেওয়ার মানসিকতা গড়ে উঠবে।  আর সঙ্গীর আস্থা ও ভালোবাসাও বেড়ে যাবে আপনার প্রতি।  যা সম্পর্ক সুখের করে তোলার অন্যতম শর্ত।
চাইলে সাগরে ঢেউ গুনতে গুনতে যেমন প্রিয়জনের কাঁধে মাথা রাখতেন, সেভাবেই হালকা একটু কিচেন রোমান্স করেই নিলেন।  রান্নাঘরের এই দু’জনের সময় কাটানো ও কাজের মাধ্যমে সম্পর্কও নতুন করে উপভোগ করতে পারেন।  প্রিয়জনের মনের কাছাকাছি আসার সুযোগ হতে পারে রান্নাঘর।  সুযোগটা কাজে লাগুক… এবার ঘরেই প্রেম জমুক।

ডিসি/এসআইকে/ইউএস