করোনার নমুনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করায় উদ্বেগ ডা. শাহাদাতের

46

নগর প্রতিবেদক, দৈনিক চট্টগ্রাম >>>
সরকার করোনার নমুনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ও চসিক নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন।  আজ সোমবার (২৯ জুন) দৈনিক চট্টগ্রামে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকে চট্টগ্রামে দিন দিন করোনা সংক্রমিত রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে।  বর্তমানে করোনার ভয়াবহ প্রাদুর্ভাবের কারণে এই শহরের সাধারণ জনগণ অত্যন্ত স্বাস্থ্যঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।  চিকিৎসার জন্য মানুষ এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ছুটছে, কিন্তু চিকিৎসা পাচ্ছেনা।
অথচ চিকিৎসা সেবা পাওয়া মানুষের মৌলিক অধিকার। যেখানে সারাদেশ করোনায় বিপর্যস্ত হয়ে মানুষ দিশেহারা, ঠিক সেই সংকটময় সময়ে করোনার নমুনা পরীক্ষায় সরকার ফি নির্ধারণ করায় এখন মানুষ পরীক্ষা করানো থেকে বিরত থাকবে।  এতে পরীক্ষার মাধ্যমে করোনা নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।  এই ফি নির্ধারণ করে সরকার ব্যবসায়ীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের থোক বরাদ্দ থেকে চট্টগ্রামে অক্সিজেন সিলিন্ডার, পালস অক্সিমিটার, হাই-ফ্লো-অক্সিজেন ন্যাজল ক্যানুলা, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর, সি প্যাপ মেশিন কেনা এবং চিকিৎসকদের প্রণোদনা বাবদ অতিসত্বর ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়েছিলাম।  কিন্তু সরকার আজ পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেয়নি।  এতে সমগ্র চট্টগ্রামবাসী হতাশ হয়েছে।  বরাদ্দ না দিয়ে চট্টগ্রামের প্রতি বিমাতাসূলভ আচরণ করা হয়েছে।
সরকার চট্টগ্রামে এখনও করোনা উপসর্গযুক্ত রোগীদের সেবায় কোনো হাসপাতাল ঘোষণা দেয়নি।  যার কারনে উপসর্গযুক্ত রোগী বেশী মারা যাচ্ছে।  তিনি বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে নমুনা পরীক্ষা বিনামূল্যে করানো উচিৎ।  যতবেশী পরীক্ষা হবে তত বেশী করোনা নিয়ন্ত্রণে থাকবে।  এখন ফি নির্ধারণ করার ফলে নমুনা পরীক্ষা থেকে মানুষ দূরে সরে আসবে।  এমনিতেই নানান বিরম্বনা, দেরিতে ফলাফল পাওয়ায় মানুষ করোনা টেস্ট করাতে অনীহা দেখাচ্ছে।  টাকা দিয়ে সাধারণ মানুষ করোনা টেস্ট করাবে- এটা হাস্যকর।  এতে করে পরীক্ষা কম হলে করোনা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।
তিনি বলেন, এন্টিবডি র‌্যাপিড টেস্ট করার জন্য আমরা প্রস্তাব করেছিলাম।  কিন্তু সরকার দেশের কোথাও এটা করার উদ্যোগ নেয়নি।  এটা করতে পারলে অনেক মানুষ পরীক্ষার আওতায় আসতো।  ডা. শাহাদাত নমুনা পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা বৃদ্ধি করে পিসিআর টেস্টের পাশাপাশি র‌্যাপিড এন্টিবডি টেস্টের মাধ্যমে সর্বাধিক জনসাধারণকে করোনা পরীক্ষার আওতায় এনে নমুনা পরীক্ষার ফি আদায়ের ঘোষণা থেকে সরে আসার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

ডিসি/এসআইকে/এসএজে